রাঙামাটিতে নির্বাচনকর্মীদের ওপর গুলিবর্ষণ: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৭

0


Published : ১৯.০৩.২০১৯ ১১:৫৫ পূর্বাহ্ণ BdST

রাঙামাটির সীমান্তবর্তী বাঘাইছড়ি উপজেলার সাজেকের কংলাক থেকে নির্বাচন শেষে ফেরার পথে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে সাতজনে দাঁড়িয়েছে। সোমবার সন্ধ্যার দিকে ৯ কিলো এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।


নিহতরা হলেন- সহকারী প্রিজাইডিং শিক্ষক মো. আমির হোসেন(৪০), ভিডিপি মো. আল আমিন(১৭), ভিডিপি ইউনিয়ন লিডার বিলকিস(৪০), ভিডিপি দলনেতা মিহির কান্তি দত্ত(৪০), ভিডিপি জাহানারা বেগম, পথচারী মন্টু চাকমা (২৭) ও আবু তৈয়ব(৪০)।বাঘাইছড়ি-দিঘিনালা সড়কের ৯ কিলো এলাকায় নির্বাচন কর্মকর্তা ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের বহনকারী চাঁদের গাড়িগুলোর উপর হামলা হয়। এতে নির্বাচনী কর্মকর্তাসহ ছয় জন নিহত হন।  

পরে রাত পৌনে ১১টার দিকে চট্টগ্রামের হাসপাতালে নেওয়ার পথে আরও একজনের মৃত্যুর খবর জানান রাঙামাটির জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশিদ। পুলিশ ও স্থানীয় কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, হামলায় সাতজন নিহত হওয়ার পাশাপাশি চারজন পুলিশসহ আরও ১০-১২ গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। নিহত ও আহতরা সবাই নির্বাচনের দায়িত্বে ছিলেন
পুলিশ জানায়, উপজেলার কংলাক, মাচালং ও বাঘাইহাট কেন্দ্র থেকে নির্বাচন কর্মকর্তা ও নিরাপত্তা কর্মকর্তারা ভোটগ্রহণ শেষে উপজেলা সদরে আসার পথে ৯ কিলো এলাকায় পৌছলে সন্ত্রাসীরা গুলি চালালে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। পাশের পাহাড় থেকে তাদের গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি করা হয়। আহতদের দ্রুত উদ্ধার করে বাঘাইছড়ি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

কেন্দ্র থেকে আসার পথে একটি চাঁদের গাড়িতে প্রায় ২৫ জন নির্বাচনী কর্মকর্তা ও নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য ছিলেন। এদিকে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো. ছুফি উল্লাহ বাংলা কাগজকে জানান, ঘটনার পরপরই গুলিবিদ্ধদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। এদের মধ্যে গুলিবিদ্ধ চার পুলিশ সদস্যসহ আহত আরও ৭/৮ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সেনাবাহিনীর সহায়তায় হেলিকপ্টারে করে চট্টগ্রামে নিয়ে যাওয়া হয়।

উল্লেখ্য, ইউপিডিএফ সমর্থিত প্রার্থী বর্তমান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বড়ঋষি চাকমা সকালে ভোটগ্রহণ শুরুর এক ঘণ্টার পর নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ এনে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।

আপনার মন্তব্য :

Please enter your comment!
Please enter your name here