চ্যাম্পিয়নস লিগে ক্যাম্প ন্যূয়ে মেসিময় রাত

0


Published : ১৪.০৩.২০১৯ ১০:২১ পূর্বাহ্ণ BdST

গতরাতে তুরিনে ফুটবল বিশ্ব দেখেছিল রোনালদো শো। তাই কিনা একটু তেঁতেঁ ছিলেন তারই প্রতিদ্বন্দ্বী লিওনেল মেসি। তাই নিজের সেরাটা দেখাতে বুধবার রাতই বেছে নিলেন তিনি। তার দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ আটে উঠেছে বার্সেলোনা।


অথচ ম্যাচ শুরুর আগেও শঙ্কা ছিল চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ আট স্পেন শূন্য হওয়ার। কারণ জুভিদের কাছে অ্যাথলেটিকো হেরে যাওয়ায় স্পেনের প্রতিনিধি হিসেবে বেঁচে ছিল বার্সেলোনা। অবশেষে সব শঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়ে গোল বন্যায় ভাসিয়ে কোয়ার্টারে পা রেখেছে কাতালানরা।

উল্লেখ, এর আগে ২০০৫ এ চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টারে কোনও স্প্যানিশ দল প্রতিনিধিত্ব করতে পারেনি।

বুধবার রাতে নিজেদের মাঠ ক্যাম্প ন্যূতে লিওঁকে আতিথেয়তা দেয় বার্সেলোনা। এদিন বার্সেলোনার হয়ে দুটি গোল করেন অধিনায়ক লিওনেল মেসি, একটি করে গোল করেন ফিলিপ কুতিনহো, ওসমানে ডেম্বেলে, জেরার্ড পিকে।

ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণের পরসা সাজিয়ে বসে বার্সেলোনা। ম্যাচের চতুর্থ মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারতো বার্সেলোনা। ডি-বক্সের বাইরে থেকে মেসির বাঁ পায়ের বাঁকানো শট বাঁক খেয়ে জালে ঢুকতে যাচ্ছিল, ঝাঁপিয়ে কর্নারের বিনিময়ে ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক।

অবশেষে ম্যাচের ১৭তম মিনিটে গোলের দেখা পায় কাতালানরা। মেসির বাড়ানো বল ধরে ডি-বক্সে ঢোকা সুয়ারেজ ফাউলের শিকার হলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। পেনাল্টি থেকে পানেনকা শটে বল জালে পাঠান আর্জেন্টাইন তারকা।  চলতি আসরে এটি ছিল বার্সা অধিনায়কের ৭ম গোল।

যার সুবাদে পেনাল্টি পেয়েছে বার্সেলোনা, সেই লুইস সুয়ারেজই বলেছেন, ঘটনাক্রমে মাটিতে পড়ে গেছেন তিনি। পেনাল্টিটা রেফারি না দিলেও পারতেন!

এরপর ম্যাচের ৩১তম মিনিটে দলকে এগিয়ে নেন ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার কুতিনহো। ডি বক্সের বাহির থেকে সুয়ারেজের কাছে বল দেন ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার আর্থার। লিওঁর গোলরক্ষক সামনে এগিয়ে আসলে আলতো ছোঁয়ায় পাশে থাকা কুতিনহোকে পাস দিলে সেখান থেকে গোল করতে ভুল করেননি এ ব্রাজিলিয়ান। এদিকে এ গোল দিয়ে গোলখরা কাটালেন কুতিনহো।

আপনার মন্তব্য :

Please enter your comment!
Please enter your name here